ম্যারাডোনা ও কাস্ত্রো দুজন দুজনার

ম্যারাডোনা ও কাস্ত্রো দুজন দুজনার 0 comments

রঙিন ডেস্ক : প্রিয় বন্ধু ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুতে ব্যাথিত আর্জেন্টিনার ফুটবল কিংবদন্তি দিয়াগো ম্যারাডোনা। ফুটবল ঈশ্বর খ্যাত ডিয়েগো ম্যারাডোনা ও কিউবার এই বিপ্লবী ফিদেল কাস্ত্রো ছিলেন দুজন দুজনার। তাদের বন্ধুত্বের কথা জানে বিশ্ববাসী।

ফুটবল বিষয়ক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট গোল ডট কমের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিপ্লবী নেতা ফিদেল কাস্ত্রো ছিলেন ম্যারাডোনার একনিষ্ট ভক্ত। ম্যারাডোনার জীবনের কিছু দু:সময়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এমনকি আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপজয়ী এই অধিনায়কের জীবনও বাঁচিয়েছিলেন ফিদেল কাস্ত্রো।

ফিদেল কাস্ত্রোকে নিজের জার্সি উপহার দিচ্ছেন ম্যারাডোনা

ফিদেল কাস্ত্রোকে নিজের জার্সি উপহার দিচ্ছেন ম্যারাডোনা

 

 

 

 

ম্যারাডোনা ১৯৮৬ সালে বিশ্বকাপ জয়ের পর পা রেখেছিলেন কিউবাতে। দেশটির তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ফিদেল কাস্ত্রোর সঙ্গে দেখাও করেছিলেন। বিপ্লবী নেতার আপ্যায়ন, ব্যবহার ও ব্যক্তিত্ব দেখে যারপরনাই মুগ্ধ হয়েছিলেন ম্যারাডোনা। এ ছাড়াও জাতীয় দলের ১০ নাম্বার জার্সিটা উপহার দেন কাস্ত্রোকে।

কিউবা থেকে ফিরে আসার পরও বন্ধুত্ব বজায় রেখেছিলেন ম্যারাডোনা-কাস্ত্রো। এক সময় মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন আর্জেন্টিনার এই কিংবদন্তি ফুটবলার। মাদক নেওয়ার জন্য ১৯৯৪ বিশ্বকাপে নিষিদ্ধও হন তিনি। তখন ম্যারাডোনার পুনর্বাসনের জন্য হাসপাতালেও ভর্তি হতে হয়।

সে সময় এগিয়ে আসেন কিউবার এই বিপ্লবী নেতা। কিউবার ‘লা পেড্রেরা’ হাসপাতালে; যেখানে পুরো আফ্রিকার চেয়ে অধিক যোগ্যতাসম্পন্ন ডাক্তার ছিলেন, সেখানে ম্যারাডোনাকে ভর্তি করে দেন কাস্ত্রো। এই হাসপাতালে থেকেই ম্যারাডোনার পুনর্বাসন চলতে থাকে এবং খুব দ্রুতই উন্নতি করতে থাকেন। সেই সঙ্গে বাঁচে আর্জেন্টাইন এই কিংবদন্তির জীবন।

ফিদেল কাস্ত্রোর মৃত্যুর খবর যখন ম্যারাডোনা শুনতে পান তখন তিনি ক্রোয়েশিয়ায় ডেভিস কাপের ফাইনাল উপভোগ করছিলেন। টিওয়াসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ম্যারাডোনা বলেন, ‘কাস্ত্রো ছিল আমার বাবার মতো। টেনিস ম্যাচটা শেষ হলেই আমি কিউবা যাব আমার বন্ধুকে বিদায় জানাতে। সে আমার জন্য কিউবার দরজা সব সময় খোলা রেখেছিল, এমনকি যখন আর্জেন্টিনাও আমার জন্য দরজা বন্ধ করে দিয়েছিল।’

কিউবার স্থানীয় সময় শুক্রবার সকালে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান দেশটির সমাজতন্ত্রী বিপ্লবী ফিদেল কাস্ত্রো। পাঠক মনে প্রশ্ন আসতে পারে, কিউবার এই বিপ্লবী নেতার সঙ্গে ফুটবল ঈশ্বর খ্যাত ডিয়েগো ম্যারাডোনার কী সম্পর্ক!

এএইচ

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Your data will be safe!Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.