বাংলাদেশ ব্যাংককে সাহায্য করবে ‘ফায়ারআই’

বাংলাদেশ ব্যাংককে সাহায্য করবে ‘ফায়ারআই’ March 11, 2016 0 comments

রঙিন ডেস্ক : ‘হ্যাকিং’য়ের মাধ্যমে হাতিয়ে নেয়া বাংলাদেশ ব্যাংকের ৮ কোটি ডলার ফিরে পেতে সিলিকন ভ্যালি ভিত্তিক সাইবার নিরাপত্তা কোম্পানি ফায়ারআইয়ের ম্যানডিয়েন্ট ফরেনসিক বিভাগের সহযোগিতা নেওয়া হচ্ছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে রয়টার্স।

এর আগে বড় বড় সাইবার চুরির ঘটনাগুলোর তদন্তে সাফল্য দেখিয়েছিল এ কোম্পানিটি। এ কোম্পানিটি ছাড়াও বিশ্বের অন্যতম বড় অর্থচুরির ঘটনার কুল কিনারা করতে বাংলাদেশ সরকার ইতিমধ্যে এফবিআইসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্টদের সহায়তা চেয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের পরামর্শক ওয়ার্ল্ড ইনফরমেটিক্সই অর্থ লোপাটের তদন্তে ফায়ারআইকে সম্পৃক্ত করেছে বলে সংশ্লিষ্ট দুজন রয়টার্সকে জানিয়েছেন। আর যুক্তরাষ্ট্র সরকারও বিষয়টি তদন্তে বাংলাদেশকে সাহায্য করার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

ব্যাংকের টাকা চুরির যেসব ঘটনা এ পর্যন্ত বিশ্বে ঘটেছে, তার মধ্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের এ ঘটনাকে ‘অন্যতম বড়’ বলছে রয়টার্স। যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (এফবিআই) ও জাস্টিস ডিপার্টমেন্ট এই তদন্ত নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক আলোচনা করেছে বলেও জানিয়েছে রয়টার্স। তবে কোন পক্ষই বিষয়টি নিয়ে এখনো স্পষ্টভাবে কিছু বলেনি।

গত মাসে অর্থ লোপাটের ওই ঘটনা ঘটলেও তা প্রকাশ্যে আসে গত সপ্তাহে ফিলিপিন্সের একটি পত্রিকার খবর হয়ে।

ডেইলি ইনকোয়ারার বলেছে, সুইফট মেসেজিং সিস্টেমে জালিয়াতির মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের অর্থ সরানো হয় ফিলিপাইন্স ও শ্রীলঙ্কার ব্যাংকে।

শ্রীলঙ্কায় যাওয়া দুই কোটি ডলার মাঝপথে আটকানো গেলেও ফিলিপাইন্সের পাঁচটি অ্যাকাউন্টে নেওয়া ৮ কোটি ডলার ক্যাসিনো হয়ে হংকংয়ে পাচার হয়ে গেছে বলে পত্রিকাটির খবর।

নিউ ইয়র্ক ফেডারেল রিজার্ভ কর্তৃপক্ষ কেবল বলেছে, এ ঘটনার তদন্তে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সঙ্গে কাজ করছে তারা। তাদের দাবি, এই জালিয়াতির জন্য তাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা হ্যাকাররা ভাঙতে পারেনি।

রয়টার্স লিখেছে, সাইবার অপরাধীরা কীভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের নেটওয়ার্কে ঢুকেছে, লুট হওয়া অর্থ কোথায় কোথায় গেছে এবং কোনো টাকা উদ্ধার করা যাবে কি না- এসব প্রশ্নের উত্তর মিলতে পারে যুক্তরাষ্ট্রের তদন্ত থেকে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের দুই জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হ্যাকাররা বাংলাদেশ ব্যাংকের সিস্টেমে ঢুকেই পেমেন্ট ট্রান্সফারের ক্রেডেনশিয়াল চুরি করে। এরপর ভুয়া সুইফট মেসেজের মাধ্যমে ফেডারেল রিজার্ভকে অর্থ স্থানান্তরের অনুরোধ পাঠানো হয়।

ফেব্রুয়ারির প্রথম দিকে এক সপ্তাহের মধ্যে এরকম ৩৫টি অনুরোধ যায় ফেডারেল রিজার্ভে। সব মিলিয়ে প্রায় ১ বিলিয়ন ডলার স্থানান্তর করতে বলা হয় বিভিন্ন অ্যাকাউন্টে।

এর মধ্যে চারটি অনুরোধের বিপরীতে ফিলিপিন্সের এক ব্যাংকের পাঁচটি অ্যাকাউন্টে মোট ৮১ মিলিয়ন ডলার পাঠায় যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ।

পঞ্চম আদেশে শ্রীলঙ্কার একটি ‘ভুয়া’ এনজিওর অ্যাকাউন্টে ২০ মিলিয়ন ডলার পাঠানো হলেও বানান ভুলে সন্দেহ জাগায় শেষ মুহূর্তে তা আটকে যায়।

 এএইচ

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Your data will be safe!Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.