সোনারগাঁয়ের সোনালী ঐতিহ্যঃ পার্ট-০২

সোনারগাঁয়ের সোনালী ঐতিহ্যঃ পার্ট-০২ জুলাই ৩১, ২০১৭ ০ comments

সরদার জাহিদুল কবীর: সোনারগাঁয়ের সোনালী ঐতিহ্য তথা আমাদের জাতীয় লোক-সংস্কৃতির পরিচয়কে চিরভাস্বর রাখতে, ১৯৭৫ সালের ১২ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের উদ্যোগে ও অর্থ সাহায্যে, শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের সভাপতিত্বে, ১২ সদস্যের প্রথম বোর্ড পরিচালনায় সোনারগাঁয়ে গড়ে তোলা হয় বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন।

s5সময়ের সিঁড়ি ভেঙ্গে বর্তমানে ১৭০ বিঘা আয়তনের ফাউন্ডেশনে যোগ হয়েছে নানান উপকরণ, গৃহীত হয়েছে বিভিন্ন কর্মসূচী। ফাউন্ডেশনে আছে আধুনিক স্থাপত্যশৈলীতে তৈরি প্রশাসনিক ভবন। প্রশাসনিক ভবনের সামনে সবুজ চত্বরে আছে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণদানের সুউচ্চ ব্রোঞ্জ ভাস্কর্য। আছে শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের আবক্ষ ভাস্কর্য, তাঁর সংগ্রাম চিত্রের ভাস্কর্য, শেখ রাসেল ভাস্কর্য।

s10শিল্পাচার্য জয়নুল লোক ও কারুশিল্প জাদুঘরের ২টি গ্যালারিতে প্রদর্শিত আছে কাঠের তৈরি প্রাচীন ও আকধুনিক কালের নিদর্শন, জামদানি ও নকশিকাঁথা, তুলা থেকে বস্ত্র তৈরির ধারাবাহিক চিত্র এবং আরও বেশ কিছু নিদর্শন। ১০টি গ্যালারিতে ৬০৩টি নিদর্শন প্রদর্শিত আছে লোক ও কারুশিল্প জাদুঘরে। গবেষণার জন্য আছে লাইব্রেরি ও ডকুমেন্টেশন সেন্টার।

s6ফাউন্ডেশন কমপ্লেক্সে আরও আছে লোকজ মঞ্চ, লোকজ রেস্তোরাঁ, গুবাকতরুর সারিসহ আম-লিচু-পাম-নারিকেল-মেহগনির ছাঁয়াঘেরা পিকনিক ও শ্যুটিং স্পট। আছে নাগরদোলা, সোনারতরীতে দোল খেতে খেতে মন ভাসবে সাগরের উত্তাল ঢেউয়ে। কয়েকটি লেক ছড়িয়ে আছে পুরো চত্বর জুড়ে। বাশের নক্সায় কংক্রিটের নান্দনিক উত্তল কারুব্রিজসমূহ লেকের দুই প্রান্তকে সংযুক্ত করেছে। টিকিটের মাধ্যমে বরশিতে মাছ শিকারের ব্যবস্থা আছে লেকে।

s9ফাইবার গ্লাসের প্যাডেল বোটে বসলে, লেকের স্বচ্ছ পানিতে ভাসলে, দু’প্রান্তের প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক সৌন্দর্য চোখে আনবে বাড়তি মুগ্ধতা। ফাউন্ডেশন চত্বরে আছে কারুপণ্য বিপণন কর্ণার। এক সময়ের জগদ্বিখ্যাত বাংলার মসলিন তৈরি হতো এই সোনারগাঁয়ে। হারিয়ে যাওয়া মসলিনের হারানো পথে উত্তরশুরি হয়ে আসে জামদানি। জামদানি তৈরি ও বিকিকিনির ব্যবস্থা আছে এখানে। মুঘল আমল থেকে আজও বঙ্গনারীর বাহারী শাড়ী জামদানি।

s3বছরের বারমাসে তের পার্বণের আয়োজন করা হয় এখানে। লোকজ মেলা, উৎসব, জাতীয় দিবসসমূহ, বাংলা বর্ষবরণ, বঙ্গবন্ধু-রবী-নজরুল-জয়নুল জন্ম-মৃত্যুবার্ষিকী পালন প্রভৃতি। বলা যায়, সব অনুসঙ্গের সমন্বয়ে সোনারগাঁয়ের বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন যেন পটে আঁকা এক টুকরো বাংলাদেশ।

s4বাংলার প্রাচীন রাজধানী সোনারগাঁয়ে, বিক্ষিপ্তভাবে ছড়িয়ে থাকা ইতিহাসের জৌলুস, আপন চোখে দেখতে, প্রতি দিন হাজার হাজার দর্শনার্থীর ঢল নামে এখানে। বাংলার হাজার বছরের ঐতিহ্যের সাথে পরিচিত হতে সবার প্রতি রইল সোনারগাঁ পরিদর্শনের আহবান।

-এএইচ, ২/২

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

<