শিশু কি কার্টুনে আসক্ত?

শিশু কি কার্টুনে আসক্ত? নভেম্বর ৩, ২০১৮ ০ comments
Children are addicted to cartoons?

শিশু কি কার্টুনে আসক্ত?

রঙিন ডেস্ক : বর্তমান যুগের শিশুরা টিভি খুললেই কার্টুন-এর চ্যানেলে আগে টিউন করে। অবসরে তারা কার্টুন নিয়েই পড়ে থাকে। তবে এটা আসক্তির পর্যায়ে গেলে কিছু সমস্যা দেখা দেয়। এর মধ্যে অন্যতম একটি হলো কার্টুন না চালালে তারা খেতে চায় না।

ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদন বলছে, কার্টুন দেখে নানা ধরনের উদ্ভট আচরণ শিখে শিশুরা। এটা খুবই স্বাভাবিক। শিশুরা অনুকরণপ্রিয়। তারা যা দেখে তাই করতে পছন্দ করে। এ কারণে শিশুরা যে কার্টুন দেখে সেটা যেন মানসম্পন্ন হয়, এ ব্যাপারটি নিশ্চিতের চেষ্টা করতে হবে।

শিশুদের কার্টুন দেখা বিষয়ে মনোবিদ কায়লা বইস ও ব্র্যাড বুশম্যান মিশিগান ইউনিভার্সিটিতে একটি গবেষণা করেন। এতে দেখা যায়, দুই থেকে পাঁচ বছরের শিশুরা প্রতি সপ্তাহে গড়ে ৩২ ঘণ্টা কার্টুন দেখে। ছয় থেকে এগারো বছর বয়সীদের ক্ষেত্রে এই পরিমাণ ২৮ ঘণ্টা।

গবেষণায় দেখা গেছে, কার্টুন দেখার ফলে বদলে যায় শিশুদের আচার-আচরণ। নিরীহ বাধ্য সন্তান হয়ে উঠতে পারে অবাধ্য-হিংস্র। আবার দেশীয় সংস্কৃতির বদলে তারা রপ্ত করতে পারে বিদেশি রীতি-নীতি যা নিজেদের সমাজে একেবারেই বেমানান।

আরো পড়ুন:- সন্তানদের যে কথাগুলো বলা উচিৎ নয়

এদিকে ভারতের গুজরাটে পরিচালিত এক গবেষণা বলছে, কার্টুন দেখলে শতকরা আশি শতাংশ ক্ষেত্রেই শিশুদের মধ্যে পরিবর্তন আসে। এমনকি কার্টুন শিশুদের মাদকাসক্তির দিকেও নিয়ে যেতে পারে।

এ অবস্থা ঠেকাতে কী করবেন তাহলে? সবার আগে শিশুদের জন্য সারা দিনে কার্টুন দেখার সর্বোচ্চ সময় বেঁধে দিন দেড় ঘণ্টা। শিশুকে কার্টুন দেখতে দেয়ার আগে নিজে ভালো করে সেগুলো দেখুন। এরপর যেটা কম ক্ষতিকারক মনে হবে সেটাই তাকে দেখতে দিন।

শিশুর কার্টুনের আসক্তি দূর করতে সবচেয়ে ভালো সমাধান হতে পারে শিশুকে নিয়ে বাইরে ঘুরে বেড়ানো। নিয়মিত এমনটি করলে শিশুর স্বাস্থ্য যেমন ভালো থাকবে তেমনি কার্টুনের প্রতিও তার আসক্তি কমবে। শিশুকে বাসায় না রেখে তাকে বাইরে খেলতে দিন।

এছাড়া রাতে ঘুমানোর সময় তাকে গল্প শোনানোর অভ্যাস করুন। দেখবেন, আপনার শিশু আপনার চাওয়া মতোই বেড়ে উঠছে।

আরপি/ এএইচ

এসজেডকে

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

<