‘বিরল প্রজাতির মানুষও ফোন দেয়’

‘বিরল প্রজাতির মানুষও ফোন দেয়’ November 9, 2015 0 comments

রঙিন ডেস্ক: বেশ চটেছেন নায়লা। ক্ষোভ ঝেড়েছেন নির্মাতাদের ওপর। ক্ষোভ ঝেড়েছেন না বলে বলা যায় নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ঝাল মিটিয়েছেন। কাকে উদ্দেশ্য করে তিনি এমন রাগ দেখালেন সেটা পরিস্কার নয়। তবে তার রাগ যে ‘গামা’ লেবেলে পৌচেছে তা কিন্তু পরিস্কার। চলুন চোখ বুলিয়ে নেই নায়লার স্ট্যাটাসে।

আমি বুঝি না মানুষের মধ্যে এতো বেশী unprofessional ism কেন? আপনারা এনাকে ওনাকে দিয়ে ফোন দিচ্ছেন আমার পারিশ্রমিক কমানোর জন্য। অনেকের অনুরোধে যখন কমাচ্ছি, কিন্তু তারপরও আপনারা কাজের কোন প্রসিডিউর ফলো করতে চান না। এডভ্যান্স, সাইনিং পেপার…এগুলার নাম শুনলে তো মনে হয় আকাশ থেকে পড়েন! এক কাজের জন্য দশ বার ডেট পরিবর্তন করেন…কেন ভাই? আপনাদের জন্য এতো ডেট দেয়াতো আমার পক্ষে সম্ভব না।

স্ক্রিন সর্টটি নায়লা নাঈমের ফেসবুক থেকে নেয়া

স্ক্রিন সর্টটি নায়লা নাঈমের ফেসবুক থেকে নেয়া

মাঝে মাঝে আমার ম্যানেজারকে এমন সব বিরল প্রজাতির মানুষ ফোন দেয় যারা আমার কাজের পারিশ্রমিক এর কথা শুনে বলেন, কাজটা করে দিতে বলেন ম্যাডামকে, ওনার অনেক নাম হবে! আমি এইটাও বুঝি না, আমার কি নাম করবেন আপনারা! আমিতো ভাই কোন চ্যারিটি ফার্ম খুলে বসিনি। আমার সাজ সজ্জা, চলাফেরা, সিকিউরিটি নিশ্চয়ই ফ্রীতে হয় না! আবার কিছু পাবলিক আছে হঠাৎ কল করে বলবে নায়লা আজকে সন্ধ্যায় ফ্রী আছো, মিটিংটা করতাম আরকি… আমি প্রতিউত্তরে বলব, আমাকে আগে জানালে ভাল হত; এখন তো আমি ফ্রী নাই। বলবে, দেখ না একটু কোনভাবে টাইম ম্যানেজ করা যায় কিনা… রাত এগারোটার দিকে হলেও চলবে।

প্রথমত, এটা ঢাকা জ্যামের শহর। হুট করে কোথাও প্লান ছাড়া যাওয়া বোকামি। দ্বিতীয়ত, আমি সকাল সাতটায় উঠি, আমাকে সো কলড মডেল পান নাই যে আমার দিন শুরু হয় দুপুর তিনটা থেকে। ভাই ধান্দাবাজী ছাড়েন… হয় নিয়ম মাফিক কাজ করেন নইলে দূরে গিয়া মুড়ি খান। আপনাদের এইসব ফালতু পেচাল শোনার টাইম আমার নাই। আমি একজন ডেন্টিষ্ট, আমার সময় অনেক মূল্যবান। আমি এসব অনিয়মের মধ্যে নাই। আর সবারই কাজের একটা সিস্টেম থাকে। সেটাকে মূল্যায়ন করা শিখুন।_NN

এএইচ/

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Your data will be safe!Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.