দর্শকের অনুরোধে আবারো টিভিতে ‘বড় ছেলে’

September 13, 2017 0 comments

রঙিন ডেস্ক : ঈদুল আজহায় প্রশংসিত টেলিছবির তালিকায় ওপরের দিকে রয়েছে অপূর্ব ও মেহজাবিন অভিনীত ‘বড় ছেলে’। তাদের আবেগাপ্লুত অভিনয় দেখে বেশিরভাগ দর্শকই চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি। এর গল্পে রয়েছে একটি মধ্যবিত্ত পরিবারের টানাপড়েন।

সিডি চয়েসের ইউটিউব চ্যানেলে এই টেলিছবির দর্শক ভিউ বেড়ে চলেছে আশাতীত হারে। ‘বড় ছেলে’কে দেখার ইচ্ছা জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে স্ট্যাটাসও দিচ্ছেন। সবার অনুরোধে ‘বড় ছেলে’ আবারও প্রচারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চ্যানেল নাইন।

আগামী ১৪, ১৫ ও ১৬ সেপ্টেম্বর রাত ১১টায় বিরতিহীনভাবে প্রচার হবে ‘বড় ছেলে’। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন টেলিছবিটির পরিচালক মিজানুর রহমান আরিয়ান। তিনি বলেন, ‘প্রথমেই বলে রাখা ভালো— আমার দাদা, বাবা ও আমি পরিবারের বড় ছেলে। তবে এটি আমার জীবনের গল্প নয়। কিন্তু আমি সামনে থেকে দেখেছি।’

গল্পের নেপথ্যের প্রেক্ষাপট প্রসঙ্গে পরিচালক আরিয়ান আরও বলেন, ‘কাজ করতে গিয়ে ছোটবেলার অনেক স্মৃতিই উঠে আসে। যেমন প্রাইভেট শিক্ষকদের ঘটনা। সেগুলোই এ টেলিছবিতে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি।’

একটা মধ্যবিত্ত পরিবার। বাবার রিটায়ারমেন্ট হবে আর কিছুদিনের মধ্যেই। যা বেতন পান, তাতে বাড়ি ভাড়া দেবার পর উচ্চমুল্যের এই বাজারে সংসার চালাতে বড় কষ্ট হয়। সংসারটা মূলত চলে বড় ছেলের টিউশনির টাকায়। অনেক ভালো ফলাফল করেও চাকরীর বাজারে তাকে খালি হাতে হতাশ হয়ে ফিরতে হচ্ছে প্রতিনিয়ত। টিউশনির টাকায় চলে না। অনেকটা যেন পা ঢাকতে গেলে মাথা উদোম হয়ে যায়। বাবা বাজার থেকে ফেরেন পলিথিনের ব্যাগে ১-২ কেজি চাল আর ডাল, সামান্য তেল ইত্যাদি নিয়ে, সাথে হয়তো বাসার বাচ্চাটার জন্য একটা চিপসের প্যাকেটও থাকে। বাচ্চাটা পরিবারের ডিভোর্সি মেয়েটার, ধনী পরিবার দেখে বিয়ে দিলেও পরে জানা গেল স্বামীটা ছিল একটা খারাপ মানুষ। কি আর করা, মেয়েটা ডিভোর্সের পর বাবা-মায়ের সাথেই থাকছে। ছোট ভাইটা এখনো বুঝে উঠতে পারেনি কি বিচিত্র পাথর কঠিন এ সংসার জীবন। হয়তো তার বড় ভাইই তাকে বুঝতে দেয়নি। ঠিক যেমন ছেলেটার ভালোবাসার মানুষটা তাকে সাধ আর সাধ্যের মধ্যে বিশাল ফারাকটা বুঝতে না দেবার আপ্রাণ চেষ্টা করে। ছেলেটার জন্য অপেক্ষা করে কখন সে বাদাম নিয়ে আসবে। হ্যাঁ, সামান্য কিন্তু ভালোবাসা মাখা ওই অল্প বাদামটুকুই মেয়েটার কাছে প্রবল প্রার্থিত!

টিএইচ/এএইচ

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Your data will be safe!Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.