ইন্সটাগ্রামে ছবি পোস্ট করে ট্রল হলেন প্রিয়াংকা

ইন্সটাগ্রামে ছবি পোস্ট করে ট্রল হলেন প্রিয়াংকা September 12, 2017 0 comments

রঙিন ডেস্ক : সম্প্রতি ইউনিসেফ-এর প্রতিনিধি হিসাবে প্রিয়াংকা চোপড়া গিয়েছিলেন জর্ডানের একটি উদ্বাস্তু ক্যাম্পে। যেখানে সিরিয়া থেকে আসা উদ্বাস্তু বহু শিশুই রয়েছে। সেই সমস্ত শিশুদের সঙ্গে বেশকিছুক্ষণ সময় কাটান প্রিয়াংকা। আর সেই সব ছবি নিজের সোশ্যাল সাইটে পোস্ট করেন। তবে আলোচনার বদলে সমালোচনার শিকার হলেন ‘দেশি গার্ল।’

9ইউনিসেফের গুডউইল অ্যাম্বাসাডর হিসেবে জর্ডানে গিয়েছেন প্রিয়াংকা চোপড়া। শিশুদের উন্নতি ও নিরাপত্তা সংক্রান্ত কর্মকাণ্ড পরিচালনকারী সংস্থা ইউনিসেফ, এখন জর্ডানের যুদ্ধ বিধ্বস্ত শিশুদের নিয়ে কাজ করছে। তাদের সঙ্গে কথা বলে, তাদের করুণ অবস্থার কথা জেনে প্রিয়াংকা সেখানকার কয়েকটি ছবি দিয়ে ইন্সটাগ্রামে তার অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করেছিলেন। সেখানে তিনি লিখেছিলেন, ‘বিশ্বের উচিত উদ্বাস্তু শিশুদের বাঁচার জন্য, সুস্থ জীবন উপহার দেওয়ার জন্য, তাদের মধ্যে শিক্ষার আলো পৌঁছনোর জন্য আরও একটু বেশি উদ্যোগী হওয়া।’

7টুইটারে প্রিয়াংকার এক অনুসারী লিখেছেন, ‘আমি প্রিয়াংকা চোপড়াকে অনুরোধ করব ভারতের গ্রামাঞ্চলে গিয়ে খাবারের অপেক্ষায় থাকা শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে।’ যদিও ব্যস্ত প্রিয়াংকা সমালোচককে জবাবও দিয়েছেন। উত্তরে প্রিয়াংকা লিখেছেন, ‘আমি ইউনিসেফ ইন্ডিয়ার হয়ে ১২ বছর ধরে কাজ করেছি এবং বহু জায়গায় গিয়েছি। আপনি কী করেছেন?’

8প্রিয়াংকার এমন জবাব কিন্তু নিঃসন্দেহে যোগ্য হয়েছে বলেই ধরা পড়েছে টুইটারে। অনেকেই প্রিয়াংকার পক্ষ নিয়ে সেই সমালোচককে পাল্টা জবাবও দিয়েছেন। প্রিয়াংকার মতোই অনেকের বক্তব্য, ‘এক শিশুর সমস্যা অন্য শিশুর চেয়ে কম গুরুত্বপূর্ণ কীভাবে হতে পারে?’ তারপরই তিনি বলেন, এটা কোনও সিরিয়ার সমস্যা নয়, কোনও একটি বিশেষ শিশুর সমস্যা নয়। মানবসভ্যতার সঙ্গে জড়িত একটি সমস্যা। আর আমাদের প্রত্যেকের উচিত, সেই সমস্যায় এগিয়ে এসে তার সমাধান করা। সবাই মিলে যদি এগিয়ে এসে এখনই পরবর্তী প্রজন্মকে রক্ষা না করে, তাহলে এমন দিনও দূরে নয়, যখন শিক্ষার অভাবে এই শিশুরাই সন্ত্রাসবাদকে আপন করে নেবে।

২০১১ সাল থেকে গৃহযুদ্ধে বিধ্বস্ত সিরিয়া থেকে লক্ষাধিক মানুষ জর্ডান, লেবানন, তুরস্ক, ইরাক, মিশরে গিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন। সেই উদ্বাস্তু সিরিয়াবাসীর বেশিরভাগ শিশুই কোথাও কোনো স্কুলে ভর্তি হতে পারেনি। সেই সমস্ত শিশুদের পাশে দাঁড়িয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে ইউনিসেফ। তাদের সঙ্গে আছেন প্রিয়াংকা।

টিএইচ/এএইচ

No Comments so far

Jump into a conversation

No Comments Yet!

You can be the one to start a conversation.

Your data will be safe!Your e-mail address will not be published. Also other data will not be shared with third person.